পৃথিবীর কথা | সিলেটে বেপরোয়া টোকেন সিন্ডিকেট চক্র : বন্ধ হচ্ছে না টোকেন বাণিজ্যে। পর্ব (১) ca-pub-3266865189993050

সিলেটে বেপরোয়া টোকেন সিন্ডিকেট চক্র : বন্ধ হচ্ছে না টোকেন বাণিজ্যে। পর্ব (১)

Spread the love
Advertisements
Loading...
Advertisements
Loading...

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ- নতুন সড়ক পরিবহন আইনের পর অনেকেই ভাব ছিলেন সিলেট তামাবিল মহাসড়কে টোকেন বিক্রি বন্ধ হতে পারে। সম্প্রতি একটি অনুষ্টানে সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন নম্বরবিহীন সিএনজি বন্ধের নির্দেশ দেন। কিন্তু কুদ্দুস, নাজিম, ইয়াহিয়া, জয়নাল, নেছার, আফছর ও দুলাল এসপির নির্দেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে সিলেট জেলার জৈন্তাপুর, গোয়াইনঘাট, কানাইঘাট ও শাহপরান সড়কে প্রায় তিন হাজার অবৈধ রেজিস্ট্রেশন বিহীন (নম্বরবিহীন) সিএনজি চালিত অটোরিক্সা তাদের বিশেষ টোকেনের মাধ্যমে দেদারছে চলাচল করছে। মাঝেমধ্যে প্রশাসনের অভিযানে দু’চারটি নম্বরবিহীন অটোরিক্সা আটক হলেও অদৃশ্য কারণে অভিযানগুলো থেমে যায়!ফলে এই তিন সড়কে নম্বরবিহীন অটোরিক্সা চলাচলে বাধা থাকছে না কোথাও।

টোকেনের আরেক নাম পুলিশ টোকেন। দেদারছে চলছে চাঁদা আদায় বাণিজ্য আর দালালি। ওই চাঁদাবাজদের কারনে সিলেট-তামাবিল হাওয়ে রোড’র অনটেষ্ট সিএনজি চালিত অটোরিক্সা চালকরা এখন চরম বিপাকে।

জৈন্তাপুর,গোয়াইনঘাট ও কানাইঘাট তিনটি উপজেলার টোকেন বাণিজ্যের মূল কারিগররা হলেন, জৈন্তাপুর উপজেলার হেমু হাদপাড়া গ্রামের আব্দুল মজিদের পুত্র টোকন কুদ্দুস, পীরেরবাজার হাতুড়া গ্রামের বাসিন্দা ও পীরেরবাজার সিএনজি স্টেনের ভূঁইফোড় শ্রমিক নেতা টোকন নাজিম, বটেশ্বর বাজার সিএনজি উপ-পরিষদের সাবেক সভাপতি ও সিলেট জেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের বর্তমান সিলেট জেলার সদস্য টোকন জয়নাল, হরিপুর বাজারের বিশিষ্ট চোরাচালান কারবারির গডফাদার ও একাধিক চোরাচালান মামলার আসামী টোকন ইয়াহিয়া, পীরেরবাজার সিএনজি উপ-পরিষদের বর্তমান সভাপতি চৌধুরী পাড়া গ্রামের কুটু মিয়ার পুত্র টোকন নেছার, পীরেরবাজার সিএনজি উপ-পরিষদের বর্তমান জয়েন সেক্রেটারী টিকরপাড়া গ্রামের বাবুল মিয়ার পুত্র টোকন আফছর এবং সিলেট জেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের বর্তমান সিলেট জেলার সদস্য পীরেরচক গ্রামের ইয়াকুব আলীর পুত্র টোকন দুলাল।

ইতোমধ্যে তাদের বিরুদ্ধে জাতীয়-স্থানীয় দৈনিক পত্র-পত্রিকা, টিভি চ্যানেলসহ অনলাইন নিউজপোর্টালে সংবাদ প্রকাশিত হলেও রহস্যজনক কারনে এখনও তারা আইনের ধরাচোয়ার বাইরে।

হরিপুর বাজার এলাকার টোকন কুদ্দুস ও পীরের বাজার এলাকার নাজিম উদ্দিন ওরফে টোকন নাজিমের নেতৃত্বে তাদের বেশ বড় একটি টোকেন বানিজ্যের সিন্ডিকেট চক্র।
এই চক্রটি দীর্ঘদিন থেকে সিলেট-তামাবিল রোডে চাঁদা আদায় বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় এলাকায় তাদেরকে সকলেই ‘পুলিশ টোকেন’র মালিক হিসেবে চিনে। থানা পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশের অতি কাছের লোক এই চাঁদাবাজ চক্র।

Loading...

জানা গেছে, তিন হাজারের বেশি অনটেষ্ট সিএনজি চালিত অটোরিক্সা থেকে মাসে অন্তত (৮ লাখ) টাকা উর্পাজন হয় তাদের। প্রতি সিএনজি অটোরিক্সা হতে টোকেন প্রতি হাতিয়ে নেয়া হয় ৫-৭শ’ টাকা হারে। যে চালক তাদের টোকেন ব্যবহার করবেনা তাদের কপালে জুটে মামলা, হামলা ও গাড়ি ছিনতাই। এভাবে তাদের মধ্যে কয়েকজনও বেশ কয়েকটি সিএনজি অটোরিক্সার গাড়ির মালিক বনে গেছে।

Advertisements
Loading...

এদিকে টোকন নাজিম সিলেট নগরীর ট্রাফিক পুলিশ ও শাহপরাণ (রহ.) থানা পুলিশের নামে চাঁদা আদায় করে থাকে। জেলা পর্যায়ে কুদ্দুস আর এসএমপি পর্যায়ে নাজিম। রাতভোর পর্যন্ত তাদেরকে কখনও বটেশ্বর বাজার, পীরের বাজার, সুরমা গেইট পয়েন্ট ও থানা-পুলিশের ফাঁড়িতে দেখা যায়। এমন কোন পুলিশ সদস্য নেই রাতের ডিউটিতে গেলে টোকন নাজিমের সাথে বসে নাস্তা করেন না। তবে ট্রাফিক পুলিশের ব্যাপারটি তারা গোপনে ছেড়ে ফেলে। ট্রাফিক পুলিশের এক সার্জেন্ট এই মাসোহারা চাঁদা আদায় করে থাকেন। ওই সার্জেন্ট সিলেটের স্থানীয় লোক হওয়াতে অফিস আদালতেও রয়েছে তার আধিপাত্য। অনেক সময় তার বিরুদ্ধে সিনিয়র অফিসাররাও কথা বলতে নারাজ। আর ওই সার্জেন্টকে সহযোগীতা করেন আরেক ট্রাফিক পুলিশ কর্মচারী। অভিযোগ রয়েছে তিনটি উপজেলার প্রত্যেকটি থানা পুলিশ টেবিলে মাসোহারা চাঁদা পৌছে দেয় এই টোকন সিন্ডিকেট চক্র।

এদের সাথে জড়িত রয়েছে বন্দরবাজার এলাকার ফুটপাতে বসা জুতা বিক্রেতা সহ ভূঁইইফোড় সংবাদকর্মী পরিচয়ধানকারী একাধিক ব্যক্তি।

এতে লক্ষ্য নেই বিআরটি এর কতৃপক্ষেরও। লাইসেন্স বিহীন চালক,মালিকানা নিবন্ধন, ট্যাক্স টোকেন ছাড়াই চালিয়ে দিচ্ছে এসব মোটরযান। তাও গাড়িতে ব্যবহার করা হচ্ছে শুধুমাত্র একটি টোকেন।

প্রশাসনের এমন কর্মকান্ডে দিশেহারা সচেতন মহল। কারন এমনিতেই হাইওয়ে রোডে এসব যানবাহন চলাচলেও রয়েছে বিধি-নিষেধ।

কিন্তু কেউ কারো কথা কর্ণপাত করছে না। প্রশাসনিক তৎপড়তার দুর্বলতার কারনে চাঁদা আদায় বাণিজ্য মহামারী রুপ ধারণ করছে! অথচ তাদের কোন বক্তব্য নিতে গেলেই বরাবরের মতো চক্রটি চাঁদাবাজির বিষয় এড়িয়ে যায়।

সর্বশেষ নিউজ